Breaking News

বাবার পর ছেলের শরীরেও করোনা শনাক্ত ৬টি বাড়ি লকডাউন



আক্রান্ত যুবক নগরীর একটি চেইন শপ প্রতিষ্ঠানে চাকরি করতো, যেটি দু’দিন আগেই লকডাউন করে দেয়া হয়েছিলো। সেই সাথে ওই যুবকের বাসা এবং আশপাশের আরো ৬টি ভবনের সামনে মোতায়েন রয়েছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। তারা ওই ভবনগুলো থেকে কাউকে বের হতে কিংবা ভবনে কাউকে প্রবেশ করতে দেয়নি।

বিআইটিআইডি’র সাথে চিকিৎসকদের সমন্বয়কারী স্বাচিপ নেতা ডা. আ ন ম মিনহাজুর রহমান সময় সংবাদকে জানান, শুক্রবার বৃদ্ধের শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হওয়ার পর সেখানকার ৬টি বাড়ি লকডাউন করে দিয়েছিলো প্রশাসন। এর মধ্যে ওই বৃদ্ধের তিন আত্মীয়ের করোনা পরীক্ষা করা হয় রোববার। এর মধ্যে তার ছেলের পজিটিভ রিপোর্ট আসলেও বাকি দু’জন নেগেটিভ।ডা. মিনহাজ আরো জানান, বর্তমানে ওই যুবক তার বাসাতেই চিকিৎসাধীন রয়েছেন। যে পরিস্থিতি স্বাভাবিক না থাকে তাহলে হয়তো জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হবে। এমনকি জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন তার বাবার অবস্থাও কিছুটা উন্নতির দিকে।

তিনি জানান, অবশ্য ওই বৃদ্ধের শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হওয়ার পর পরই নগরীর একটি বেসরকারি ক্লিনিকের তিন চিকিৎসক এবং এক পুলিশ সদস্যসহ মোট ১৮ জনকে আইসোলেশনে পাঠানো হয়েছিলো। সৌদি আরব থেকে পবিত্র ওমরাহ করে আসা স্বজনের মাধ্যমে তারা সংক্রমিত হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, রোববার বিআইটিআইডি ল্যাবে মোট ২৩ জনের করোনা ভাইরাস পরীক্ষা করা হয়েছিলো। এর মধ্যে একজনের শরীরে করোনা পজিটিভ এসেছে।