Breaking News

তারাবিহ পড়তে ব’ন্ধ গেট টপকালেন নির্ধারিত ২০ জনের বেশি মুসল্লিরা

মহামারি ক’রো’নার উর্ধ্বমূখী সংক্র’মণ প্রতি’রো’ধে ও’য়াক্ত ও তারাবিহের নামাজে ২০ জনের বেশি মুসল্লি একসাথে নামাজ না আদায়ের নির্দেশ দিয়েছে সরকার। এর ফলে ১৩ এপ্রিল দিনগত রাতে প্রথম তারা’বিহের নামাজ পড়তে গিয়ে বিড়’ম্বনায় পড়েন সাধারণ মুসল্লিরা।

রাজ’ধানীর বাংলামোটরে বাই’তুল মোবারক মসজিদে ২০ জন মু’সল্লি প্রবেশের পর গেটে তালা ঝু’লিয়ে দেয়া হয়। বাইরে মুসু’ল্লি’দের ভিড় থাক’লেও সর’কারি নি’র্দে’শনা মো’তাবেক অতি’রি’ক্ত কাউকে মসজিদে ঢু’কতে দেওয়া হয়নি।

প্রায় একই রকম চিত্র দেখা গেছে, খান’জাহান আলী জামে মসজিদ, ঢাকা উদ্যান জামে মসজিদসহ অসংখ্য মসজিদে। সেখানেও নির্ধারিত সংখ্যার বেশি মুসল্লি মসজিদে ঢু’কতে দেওয়া হয়নি। এসময় অনেককে মসজিদের গেট টপকে ভেতরে প্রবেশ করতে দেখা যায়।

মূ’লত সরকারি নির্দেশনা মা’নতে মসজিদ কমিটিগুলোকে বাড়তি সত’র্কতামূ’লক ব্যব’স্থা নিতে দেখা গেছে।

এদিকে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে ধ’র্ম’প্রাণ মুসল্লিরা জামাতে অংশ নিয়েছেন ৪ কাতারে। মূল ফটক ব’ন্ধ করে দেয়ার পর অনেকে মসজিদের প্রবেশমুখে দাঁড়িয়ে নামাজ আদায় করেন। তবে মাস্ক ব্যবহার, শারীরিক দূর’ত্ব বজায় রাখাসহ স্বাস্থ্যবিধি মা’নার ক্ষে’ত্রে সচেষ্ট ছিলেন মুসল্লিরা।

এদিকে করো’নাভা’ইরাস সংক্র’ম’ণের ঊর্ধ্ব’গতি ঠেকা’তে সরকার ১৪ এপ্রিল থেকে ২১ এপ্রিল পর্যন্ত কঠোর বিধি’নিষে’ধ আ’রোপ করেছে। এম’তাব’স্থায় রমজানে মসজিদে গিয়ে তারাবিসহ অন্য নামাজে বিধি’নি’ষেধ আরো’প করেছে ধর্ম মন্ত্রণালয়।

সোমবার (১২ এপ্রিল) মন্ত্র’ণাল’য়ের জা’রিকৃত এক নির্দেশনায় বলা হয়, বিশ্বব্যাপী প্রা’ণঘা’তী ক’রোনা ভাই’রাস ভ’য়া’বহ মহা’মা’রি আকার ধারণ করায় যথাযথ সুরক্ষা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে বর্তমান পরিস্থিতিতে আগামী ১৪ এপ্রিল হতে পরব’র্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত মস’জিদে নামাজ আদায়ে নিম্নোক্ত নির্দেশনা জারি করা হলো:

(ক) মসজিদে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের প্রতি ওয়াক্তে সর্বোচ্চ ২০ জন মুসল্লি অংশগ্রহণ করবেন।

(খ) তারাবির নামাজে খতিব, ইমাম, হাফেজ, মুয়াজ্জিন ও খাদিমসহ সর্বোচ্চ ২০ জন মুসল্লি অংশগ্রহণ করবেন।

(গ) জুমার নামাজে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে মুসল্লিগণ অংশগ্রহণ করবেন।

(ঘ) সম্মানিত মুসল্লিগণকে পবিত্র রমজানে তিলাওয়াত ও যিকিরের মাধ্যমে মহান আল্লাহর রহমত ও বিপদমুক্তির জন্য দোয়া করার অনুরোধ করা হলো। সূত্র- বাংলাভিশন।