আইসোলেশন শেষ করে পরিবারের সঙ্গে যোগ দিলেন সাকিব



গত ২১ মার্চ শনিবার পরিবারের সাথে যোগ দিতে মাগুরা থেকে যুক্তরাষ্ট্রের উদ্দেশ্য রওনা দেন বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় পোস্টার বয় সাকিব আল হাসান। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রে পৌঁছে পরিবারের সাথে যোগ না দিয়ে উইসকনসিনের এক হোটেলে নিজেকে সেলফ আইসোলেশনে রাখেন তিনি। তবে ১৪ দিন আইসোলেশনে থাকার পর গতকাল শুক্রবার পরিবারের সঙ্গে যোগ দেন সাকিব। করোনাভাই’রাসের ঝুঁ’কি রয়েছে- এমন ব্যক্তিদের জন্যই সেলফ আইসোলেশন ব্যবস্থা করা হয়।

মারা’ত্মক ছোঁয়াচে এই ভাই’রাস মানবদে’হে প্রবেশের পর লক্ষণ প্রকাশ পেতে ১৪ দিন পর্যন্ত সময় লাগতে পারে। আর তাই আক্রা’ন্ত হওয়ার ঝুঁ’কি বা সন্দেহ থাকলে ১৪ দিন আইসোলেশনের পরামর্শ দেন চিকিৎসক ও গবেষকরা। সাকিব আকাশপথ ভ্রমণ করায় ঝুঁ’কি নিতে চাননি। যুক্তরাষ্ট্রে পা রেখে স্ত্রী ও মেয়ে আলাইনা হাসান অব্রির সাথে দেখা না করেই তাই হোটেলরুমে বন্দী করেছেন নিজেকে। তবে সেই ১৪ দিন শেষে যুক্তরাষ্ট্রে নিজ বাড়িতে যোগ দেন তিনি।

আইসোলেটেড থাকাকালিন কোভিড-১৯ নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ কিছু কাজ করেন সাকিব। ‘দ্য সাকিব আল হাসান ফাউন্ডেশন’ নামে একটি ফান্ড খোলেন তিনি। যেখানে ২০০০ সুবিধাবঞ্চিত পরিবারকে সাহায্যও করেছে বিশ্ব সেরা এই অলরাউন্ডার। এছাড়াও নিজের ফাউন্ডেশনের সাথে কনফিডেন্স গ্রুপ মিলে ডাক্তারদের প্রয়োজনীয় কিট সরবরাহের ২০ লক্ষ টাকার একটি অনুদান দেন ৩৩ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার।