বাংলাদেশকে ৮৫০ কোটি টাকা ঋণ দিচ্ছে বিশ্বব্যাংক



বিশ্বব্যাংকের ঢাকা কার্যালয় থেকে জানানো হয়, পাঁচ বছর গ্রেস (বিরতি) দিয়ে ৩০ বছরে এই ঋণ পরিশোধ করতে হবে বাংলাদেশকে। এ ঋণের সুবিধা পাবেন করোনায় সন্দেহভাজন, করোনায় আক্রান্ত, করোনা ঝুঁকিতে থাকা জনগণ, মেডিকেল ও জরুরি সেবায় নিয়োজিত ব্যক্তি, মেডিকেল ও পরীক্ষার সেবা সরবরাহ এবং সর্বোপরি জাতীয় চিকিৎসা সেবা।

করোনাভাইরাস বা কোভিড-১৯ মোকাবিলায় বাংলাদেশ ১০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বা প্রায় ৮৫০ কোটি টাকা ঋণ অনুমোদন দিয়েছে বিশ্বব্যাংক। শুক্রবার (৩ এপ্রিল) বিশ্বব্যাংক এ ঋণ অনুমোদন দিয়েছে বলে শনিবার জানিয়েছে এর ঢাকা কার্যালয়।

এ অর্থ মহামারি ঠেকাতে বাংলাদেশের জাতীয় পরিকল্পনা বাস্তবায়নে সহায়তা করবে মন্তব্য করে বাংলাদেশ ও ভুটানে নিযুক্ত বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর মার্সি টেম্বন বলেন, করোনাভাইরাস মোকাবিলায় বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে খুব নিবিড়ভাবে কাজ করছে বিশ্বব্যাংক। এ অর্থায়ন করোনা মহামারি ঠেকাতে বাংলাদেশের জাতীয় পরিকল্পনা বাস্তবায়নে সহায়তা করবে। সর্বোপরি দেশে নজরদারি ও করোনা পরীক্ষায় সহযোগিতা করবে এ অর্থ। সেই সঙ্গে হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসা সরঞ্জাম, ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম (পিপিই), ভেন্টিলেটরস, আইসোলেশন ইউনিট সরবরাহ নিশ্চিত করবে।