প্রেমিকার বাড়িতে যাতায়াতে সুড়ঙ্গ, স্বামীর হাতে ধরা



প্রতিবেশী প্রেমিকার সঙ্গে গোপনে অন্তরঙ্গ সময় কাটানোর জন্য নিজের বাড়ি থেকে প্রেমিকার বাড়ি পর্যন্ত সুড়ঙ্গ তৈরি করেছিলেন মেক্সিকোর এক রাজমিস্ত্রী প্রেমিক। প্রেমিক-প্রেমিকা উভয়ের স্ত্রী-স্বামী রয়েছে।

স্থানীয় গণমাধ্যমে রাজমিস্ত্রীর নাম শুধু আলবার্তো বলে উল্লেখ করা হয়। প্রেমিকার নাম পামেলা বলে জানানো হয়। আলবার্তো এবং পামেলা নিজেদের মধ্যেকার সম্পর্ক অব্যাহত রাখার জন্য তৈরি করেছিলেন নিরাপদ সুড়ঙ্গ। যাতে আর সবার চোখ ফাঁকি দিয়ে নির্বিঘ্নে চলে তাদের প্রেমলীলা।

পরিকল্পনা অনুযায়ী, তাদের গোপন সম্পর্ক ঠিকঠাক এগিয়ে যাচ্ছিল। পামেলার স্বামী নিরাপত্তা প্রহরী জর্জ কাজে বাইরে গেলেই সুড়ঙ্গ ধরে চলে আসতো প্রেমিক আলবার্তো।

একদিন কাজ থেকে একটু আগেই বাড়িতে ফিরে আসেন জর্জ। ঘরে প্রবেশ করে দেখতে পান তার স্ত্রী এবং প্রতিবেশী আলবার্তো অন্তরঙ্গ অবস্থায়।

জর্জকে দেখেই প্রেমিকাকে ছেড়ে খাটের নিজে লুকিয়ে পড়েন আলবার্তো। জর্জ খাটের নিচে খুঁজে তাকে পেল না। তবে পালিয়ে যাওয়ার আগেই আলবার্তোকে আটক করে পামেলার স্বামী।

প্রতারিত স্বামী দেখতে পান ওই খাটের নিচে একটি সুড়ঙ্গ। যা তার ঘর হয়ে উঠানের নিচ দিয়ে চলে গেছে। জর্জ সুড়ঙ্গে প্রবেশ করেন। এগোতে থাকেন সুড়ঙ্গের পথ ধরে। শেষ পর্যন্ত গিয়ে দেখতে পান সুড়ঙ্গ আলবার্তোর বাড়িতে গিয়ে উঠেছে।

সুড়ঙ্গে দৈর্ঘ্য কতো ছিল তা স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়নি। তবে সুড়ঙ্গের প্রবেশ পথের একটি ছবি তারা প্রকাশ করেছে। যা দেখে মনে হয়েছে রাজমিস্ত্রী আলবার্তো নিখুঁতভাবে তা বানিয়েছেন।

জর্জ যখন সুড়ঙ্গ ধরে তার স্ত্রীর প্রেমিকার বাড়িতে পৌঁছান, তখন আলবার্তোর স্ত্রী ঘুমিয়েছিল। আলবার্তো তার স্ত্রীর কাছ থেকে স্বাভাবিকভাবে পামেলার সঙ্গে থাকা সম্পর্ক লুকাতে চেয়েছেন। তাই বাড়ি থেকে চলে যাওয়ার জন্য জর্জকে নানাভাবে অনুরোধ করেতে থাকেন।

ক্ষুব্ধ জর্জ পামেলার সঙ্গে আলবার্তোর গোপন সম্পর্কের কথা জানিয়ে দেয় রাজমিস্ত্রীর স্ত্রীকে। তারপর আলবার্তো এবং জর্জের মধ্যে চরমমাত্রায় মারপিট বেঁধে যায়।

শেষ পর্যন্ত নিরাপত্তা বাহিনী এসে তাদের ছাড়িয়ে নিয়ে যায়।