Breaking News

সরকারকে ক্ষমতা থেকে অপসারণের অঙ্গীকার মেজর হাফিজের



গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আন্দোলনে একমাত্র মুক্তিযোদ্ধারাই রাজপথে লড়াই করে যাচ্ছে বলে দাবি করেছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমদ।তিনি বলেন, প্রতিদিন ধর্ষণ হচ্ছে- প্রতিবাদ কোথায়? দেশের গণতন্ত্র নেই- প্রতিবাদ কোথায়? অনেক রাজনৈতিক দল আছে, তারা কে কিভাবে ক্ষমতায় যাবে সেই অংক কষছে। গণতন্ত্রের জন্য তাদেরকে রাজপথে দেখি না। কিন্তু মুক্তিযোদ্ধারা বিএনপিভুক্ত, অন্য দলভুক্ত সব ধরনের মুক্তিযোদ্ধারা কয়েকবার ইতোমধ্যে রাজপথে নেমে তাদের সাহসের প্রমাণ দিয়েছেন।

মঙ্গলবার বিকালে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দল ও মুক্তিযুদ্ধের প্রজন্ম সংগঠনের যৌথ উদ্যোগে ‘বিজয়ের ৪৯তম ‘প্রত্যাশা ও প্রাপ্তি’ শীর্ষক এই সভা হয়।

গত ১৪ ডিসেম্বর বিএনপির পক্ষ থেকে দলীয় শৃঙ্খলা বিরোধী কর্মকাণ্ডের অভিযোগে হাফিজ উদ্দিন আহমদের বিরুদ্ধে কারণ দর্শানো নোটিশ দেয়া হয়। ১৯ ডিসেম্বর কারণ দর্শানো নোটিশের জবাব দেয়ার পর এই প্রথম তিনি জনসমক্ষে কোনো কর্মসূচিতে ভার্চুয়াল প্লাটফর্মে বক্তব্য দেন।

হাফিজ উদ্দিন বলেন, বিএনপির নেতাকর্মীদের প্রতি আমার বিনীত আহ্বান- এই দুঃশাসনের জগদ্দল পাথর, আওয়ামী দুঃশাসনকে অপসারণ করার জন্যে রাজপথে নেমে আসুন। যারাই রাজপথে নেমে এই সরকারকে অপসারণ করে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করবে, ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনবে, মানবিক মর্যাদা পুনরুদ্ধার করবে- আমরা সবাই তাদের সহায়ক শক্তি হিসেবে রাজপথে দৃঢ় পদক্ষেপ রাখব। সাধারণ মানুষ ও সংগ্রামী মানুষের সুদৃঢ় ঐক্য গড়ে প্রতিবেশি রাষ্ট্রের অতি নতজানু এই সরকারকে বাংলাদেশের রাষ্ট্র ক্ষমতা থেকে অপসারণ করব- এই হোক আজকের দিনে আমাদের অঙ্গীকার।

নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, আমাদের পণ্ডিত অর্থনীতিবিদ, বিশিষ্ট দালাল বুদ্ধিজীবী এবং চামচারাই বলছে- বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। অথচ আমাদের সামনে বুভুক্ষ মানুষ, ক্ষুধার্ত মানুষ, আমাদের চোখের সামনে কথা বলতে পারে না অধিকারহারা মানুষ। ওদের দেখে মনের মধ্যে, বুকের মধ্যে ক্ষোভ জমতে থাকে, বিদ্রোহ করতে চাই। তখন আমাদের সামনে পুলিশ লেলিয়ে দেয়া হয়। এই অবস্থা থেকে উত্তরণে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আন্দোলনে নামার আহ্বান জানান মান্না।

মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি সৈয়দ ইশতিয়াক আজিজ উলফাতের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সাদেক আহমেদ খানের পরিচালনায় সভায় আরও বক্তব্য দেন- গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠিতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদ, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সম্পাদক জয়নাল আবেদীন, মুক্তিযুদ্ধ প্রজন্মের কালাম ফয়েজী, রায়হান আল মাহমুদ রানা প্রমুখ।