করোনার টিকায় শুকরের উপাদান থাকলেও হারাম নয়



করোনাভাইরাস টিকা তৈরিতে হারাম উপাদান ব্যবহার করা হলেও মুসলমানদের জন্য এই টিকা ব্যবহারে কোনও সমস্যা নেই বলে জানিয়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাতের সর্বোচ্চ ইসলামি কর্তৃপক্ষ।
আল আরাবিয়ার খবরে বলা হয়, মুসলমানদের করোনার টিকা গ্রহণের অনুমতি দিয়ে সংযুক্ত আরব আমিরাতের সর্বোচ্চ ইসলামি কর্তৃপক্ষ বলছে, করোনা মহামারি প্রতিরোধকারী টিকায় যেসব উপাদান ব্যবহার করা হয়েছে সেখানে শুকরের জেলটিন থাকলেও তা গ্রহণে সমস্যা নেই। করোনার টিকায় শুকরের জেলটিন উপাদান থাকলে তা মুসলমানরা গ্রহণ করতে পারবে কিনা তা নিয়ে বিভিন্ন সময়ে বিভ্রান্ত ছাড়ানো হচ্ছে। আর এই বিভ্রান্ত দূর করতে সুস্পষ্ট বার্তা দিয়েছে সংস্থাটি। ইসলামের নিয়ম অনুযায়ী শুকরের মাংস কিংবা শুকরের যেকোনো উপাদান ব্যবহার মুসলমানদের জন্য হারাম হিসেবে বিবেচিত।
সংযুক্ত আরব আমিরাতের সর্বোচ্চ ইসলামি কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান শেখ আবদাল্লাহ বিন বায়য়াজ বলেন, করোনাভাইরাস থেকে রক্ষা পেতে শুকরের উপাদান দিয়ে তৈরি করা টিকা ছাড়া বিশ্বে অন্যকোনো টিকা যদি না পাওয়া যায়, তাহলে মানুষের জীবন রক্ষার্থে এই টিকা গ্রহণ হারাম হবে না। কারণ মানুষের জীবন রক্ষা গুরুত্বপূর্ণ।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের সর্বোচ্চ ইসলামি কর্তৃপক্ষের দায়িত্বে থাকা কয়েকজন কর্মকর্তা বলেন, শুকরের উপাদান দিয়ে তৈরি করোনার টিকা খাবার হিসেবে নয়, ওষুধ হিসেবে গ্রহণ করা হবে।
দেশটিতে গত বুধবার (২৩ ডিসেম্বর) দু’জনের শরীরে ফাইজার-বায়োএনটেকের টিকা প্রয়োগের মাধ্যমে দেশটিতে করোনা ভ্যাকসিন কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

চলতি মাসের শুরুতে চীনের তৈরি সিনোফার্মার টিকার অনুমোদন দেয় আমিরাত। ট্রায়ালের ফলাফলে টিকার কার্যকারিতা ৮৬ শতাংশ বলে কর্তৃপক্ষ জানায়।

মার্কিন ফার্মাসিউটিক্যাল জায়ান্ট ফাইজার এবং তাদের জার্মান অংশীদার বায়োএনটেকের টিকা ৯৫ শতাংশ কার্যকর বলে জানায়। তাদের ভ্যাকসিন ২১ দিনের মধ্যে দু’বার নিতে হয়।
মাইনাস ৭০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় টিকা সংরক্ষণ করতে হয়। এ কারণে সংশ্লিষ্টদের টিকা পরিবহন এবং সংরক্ষণ ব্যবস্থা উন্নত করতে হচ্ছে।