আল্লামা শফীকে ২ দিন আটকে রেখে গায়ে হাত দেয়া হয়েছিল: শামীম ওসমান



মরহুম আল্লামা শফীকে একজন ‘ঈমানদার ও সহি’ আলেম আখ্যা দিয়ে আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী নেতা ও এমপি শামীম ওসমান বলেছেন, আল্লামা শফী সাহেবের মতো একজন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন আলেমকে ২ দিন আটকে রেখে তার গায়ে হাত দেয়া হয়েছিল। শফী সাহেবের পরিবার ও অন্যান্য আলেমদের কাছেই আমরা শুনেছি। সেই অপমান আর আক্রমণ সহ্য করতে পারেনি বলেই শফী সাহেব মারা গেছেন। সেই শফী সাহেবের মৃত্যুর পর যারা হেফাজত নিয়ে মাঠে নেমেছে তারাই ভাস্কর্য ইস্যু নিয়ে দেশ ধ্বংসের পরিকল্পনায় অংশ নিচ্ছে।রোববার বিকালে ফতুল্লার নাসিম ওসমান মেমোরিয়াল পার্কে আয়োজিত ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের এক কর্মিসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে শামীম ওসমান এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ৭৫-এ বঙ্গবন্ধুকে ওরা একবার হত্যা করেছিল সশরীরে কিন্তু এবার বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যে হাতুড়ি লাগিয়ে ওরা বঙ্গবন্ধুকে কয়েকশ’বার হত্যা করেছে। ৭১-এর প্রভু আর ৯০ হাজার পাকবাহিনীকে যেভাবে নাকে খত দেয়ানো হয়েছিল একইভাবে এবার বাংলার মানুষ ওদের মাটিতে দাবিয়ে দেবে।

শামীম ওসমান বলেন, বিএনপি ও হেফাজতের অনেক বড় নেতা যারা ভালো মানুষ, আমার সঙ্গে কথা বলেন। আমি অবাক হয়ে জিজ্ঞাসা করেছি আপনারা আমাকে কেন বলছেন। তারা উত্তরে বলেছেন- ওরা আমার-আপনার বাচ্চার ভবিষ্যৎ নষ্ট করতে চায়। ওরা দেশটা ধ্বংস করে দিতে চায়। যদি দেশটাই না থাকে তবে রাজনীতি করব কার স্বার্থে। তারা বলেছেন কী পরিকল্পনা চলছে দেশকে অকার্যকর রাষ্ট্র বানাতে।

তিনি বলেন, সবার উপরে দেশ আর দেশটাকেই ওরা ধ্বংস করার পরিকল্পনা করছে। আর চায় বলেই ওরা শুরু থেকেই আমাদের দেশপ্রেমিক সুশৃঙ্খল সেনাবাহিনী, পুলিশ বাহিনী, র‌্যাব আর বিজিবির বিরুদ্ধে কথা বলছে। গোয়েন্দা প্রধানদের নিয়ে বিরোধিতা করে কথা বলেছে। ওরা চায় তাদের মানসিকভাবে দুর্বল করে দিতে। কিন্তু ওরা ভুলে গেছে, এরা কেউ পাকিস্তানের সেনাবাহিনী না, পাকিস্তানের র‌্যাব না, পুলিশ না, পাকিস্তানের বিজিবি না। ওরা মুক্তিযুদ্ধের প্রজন্মের, তাই ওদের কেনা সম্ভব না। কিনতে পারেনি বলেই এসব বাহিনীর বিরুদ্ধেই প্রথম ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, ষড়যন্ত্রকারীদের টার্গেট শুধু আওয়ামী লীগকে ক্ষমতাচ্যুত করা নয়, ওরা চায় এ দেশকে আফগানিস্তান বানাতে। তাই রাজনীতি থেকে আমাদের নয়, ষড়যন্ত্রকারীদের বিদায় দেয়ার সময় এসেছে।

শামীম ওসমান বলেন, প্রশাসনের ওপর ভরসা করে আওয়ামী লীগ রাজনীতি করে না। প্রতিটি ক্রান্তি সময়ে নারায়ণগঞ্জ থেকেই ঘণ্টা বাজিয়েছি। জাহানারা ইমাম ভবন করে ঘণ্টা বাজিয়েছিলাম। তখন যদি পুরো দেশে ঘণ্টা বাজত তবে স্বাধীনতার এত বছর পর স্বাধীনতাবিরোধীরা কথা বলার রাজনীতি করার সুযোগ পেত না; কিন্তু আজ আমাদের সেটা দেখতে হচ্ছে।

শামীম ওসমান ভাস্কর্য ইস্যুতে আলেমদের নিয়ে বলেন, যারা ভাস্কর্য নিয়ে ফতোয়া দিচ্ছেন তারা মূলত আলেম না।

আগামী ৯ জানুয়ারি নারায়ণগঞ্জে সমাবেশ করার ঘোষণা দিয়ে শামীম ওসমান বলেন, ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছিল কিন্তু এ দেশের মাটি স্বাধীন হয়েছিল ১০ জানুয়ারি ১৯৭১। কারণ ওই দিন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব দেশের মাটিতে পা দিয়েছিলেন। ওই দিন এ দেশের মাটি খুশি হয়েছিল, শুকরিয়া করেছিল। তাই ১৯৭১ সালের ১০ জানুয়ারি স্বাধীনতার পূর্ণতা এসেছিল। তাই আগামী ৯ জানুয়ারি নারায়ণগঞ্জে লাখো মানুষের সমাবেশ করে আওয়াজ তুলতে চাই, যেন ওরা বুঝে নারায়ণগঞ্জের মানুষ খেলার জন্য রেডি হয়ে গেছে।

ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম সাইফুল্লাহ বাদলের সভাপতিত্বে কর্মী সমাবেশে বক্তব্য রাখেন- জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত শহীদ বাদল, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খোকন সাহা, ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শওকত আলী, মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক শাহ নিজাম উদ্দিন, মহানগর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাত হোসেন সাজনু প্রমুখ।