ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে পূর্ণাঙ্গ সিরিজের সময়সূচি, দিনরাতের টেস্ট



করোনা পরবর্তী যুগে দেশের মাটিতে ফের বসতে চলেছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের আসর। ‌ঘরোয়া ক্রিকেট তো শুরু হবেই, তার মধ্যেই ভারত সফরে আসবে ইংল্যান্ড। খেলবে চারটি টেস্ট, পাঁচটি টি–টোয়েন্টি এবং তিনটি ওয়ানডে ম্যাচের সিরিজ। টেস্ট সিরিজের মধ্যে আবার খেলা হবে দিনরাতের টেস্টও। তবে সেটা ক্রিকেটের নন্দন কানন ইডেনে নয়, আয়োজিত হবে আহমেদাবাদের মোটেরা স্টেডিয়ামে। শুধু তাই নয়, পাঁচ ম্যাচের টি–টোয়েন্টি সিরিজও আয়োজিত হবে ওই স্টেডিয়ামেই। বৃহস্পতিবার মোটেরা স্টেডিয়ামে একটি অনুষ্ঠানে এসে এমনটাই জানিয়েছেন BCCI সচিব জয় শাহ। পরবর্তীতে বোর্ডের তরফ থেকেও সূচি জানানো হয়েছে।

ভারত সফরের আগে শ্রীলঙ্কা সফরে যাবেন ইয়ন মর্গ্যানরা। তারপর সেখান থেকেই ২৭ জানুয়ারি চেন্নাইয়ে পৌঁছবেন তাঁরা। দুই বোর্ডের তরফে ঘোষিত সূচি অনুযায়ী, চিপকে ৫ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হবে প্রথম টেস্ট। দ্বিতীয় টেস্টও হবে সেখানেই। সেটি শুরু হবে ১৩ ফেব্রুয়ারি থেকে। এরপর দু’‌দলই গুজরাটে উড়ে যাবে। সেখানে মোতেরা স্টেডিয়ামে খেলা হবে দিনরাতের টেস্টটি। ২৭ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হবে ম্যাচটি। পিংক বল টেস্টের পরই সিরিজের শেষ টেস্টটি খেলা হবে ৪ মার্চ থেকে। আইসিসি ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অংশ হিসেবে খেলা হবে টেস্ট সিরিজটি।

টেস্ট সিরিজের পর বিরাটদের বিরুদ্ধে পাঁচটি টি–২০ ও তিনটি ওয়ানডে ম্যাচ খেলবেন বেন স্টোকস–জস বাটলারটা। এর মধ্যে টি–২০ হওয়ার কথা ১২ মার্চ থেকে ২০ মার্চের মধ্যে। এরপরই আয়োজিত হবে ওয়ানডে সিরিজ। পুণেকেই ওয়ানডে সিরিজের ভেন্যু হিসেবে বেছে নেওয়া হয়েছে। ২৩, ২৬ এবং ২৮ মার্চ আয়োজিত হবে তিনটি ওয়ানডে।

চলতি বছর সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে ভারত সফরে আসার কথা ছিল জো রুটদের। কিন্তু করোনার কারণে তা আগেই বাতিল হয়ে যায়। তাই ঠিক হয়, জানুয়ারি থেকে মার্চের মধ্যে টেস্ট ও সীমিত ওভারের সিরিজ আয়োজন করা হবে। পরের বছরই আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। তাই ছোট ফরম্যাটে বেশি জোর দিচ্ছে বোর্ড। করোনার আতঙ্ক উপেক্ষা করেই আমিরশাহীতে আইপিএল আয়োজন করে চূড়ান্ত সাফল্য পেয়েছে বিসিসিআই। বিভিন্ন প্রান্তের ক্রিকেটারদের এনে কোয়েরান্টাইনে রাখা, কোভিড টেস্ট করানো থেকে জৈব সুরক্ষা বলয়ের নিয়মবিধি পালন- গোটা প্রক্রিয়া নেহাত সহজ ছিল না। বিসিসিআইয়ের কাছে তাই আগামী জানুয়ারিতে ঘরের মাটিতে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ আয়োজন তুলনামূলক সহজই। এর মধ্যেই আবার আয়োজন করা হবে ঘরোয়া ক্রিকেটও। তবে বোর্ড কর্তারা আশাবাদী এই সিরিজও সফলভাবেই আয়োজন করতে পারবেন তাঁরা। এদিকে, বর্তমানে অস্ট্রেলিয়া সফরে রয়েছে ভারতীয় দল। দেশে ফিরেই ইংল্যান্ডের মুখোমুখি হতে হবে তাঁদের।