করোনা সন্দেহে রাস্তায় পড়ে থাকা বৃদ্ধকে বুকে টেনে নিল যুবক



করোনা সন্দেহে কেউ কাছে না যাওয়ায় ২৪ ঘণ্টা রাস্তার পাশে পড়ে ছিলেন সত্তরোর্ধ্ব অসুস্থ এক রিকশাচালক। পানি খাওয়ার শ’ক্তিও তার ছিল না। অসুস্থ শরীরে কাতরাচ্ছিলেন। রাস্তার পাশেই রাখা ছিল তার রিকশাটি।

পথ চলতি কেউ সাহায্য না করলেও এক তরুণ বুকে টেনে নিয়ে সেবা করলেন তার। ভর্তি করালেন হাসপাতালে।

অসু’স্থ ওই বৃ’দ্ধ কার্যত মৃ’ত্যু মু’খে ঢলে পড়ছিলেন। আশপাশের প্রতিবেশীদের অনুমান ছিল, ওই রিকশাচালক করোনা আ’ক্রান্ত হয়েছেন।

তাই কেউ তার কাছে যেতে রাজি হননি। দীর্ঘ’ক্ষণ রা’স্তায় এভাবে পড়ে থাকার পর অবশেষে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন তরুণ সুমন মজুমদার। সেবা দিয়ে তাকে বুকে তুলে নেন তিনি।

সুমন মজুমদার ভারতীয় সেনাবাহিনীর কলকাতা সদর দফতরে কেরানির পদে ক’র্মরত। গর্ভবতী স্ত্রীকে নিয়ে অটোগাড়িতে করে ডাক্তারের কাছে যাওয়ার পথে বৃ’দ্ধ রিক’শাচাল’ককে দেখতে পান।
রাস্তার পাশে বৃ’দ্ধকে এভাবে দেখে স্ত্রীকে অটো’তে বসিয়ে রেখে রিক’শাচালককে সাহায্য করতে এগিয়ে যান তিনি।

সুমন যখন কাছে যাচ্ছিলেন তখন দেখেন রাস্তায় পড়ে পানি খাওয়ার জন্য কাতরাচ্ছেন অসু’স্থ বৃ’দ্ধ।

করোনা সন্দেহে পথ চলতি মানুষ সাহা’য্য না করলেও সুমন অসুস্থ স্ত্রীকে রাস্তার পাশে দাঁড় করিয়ে নিজের কোলে তুলে নিয়ে অসুস্থ রিকশাচালককে পানি খাইয়ে কিছুটা সুস্থ করে তোলেন। পরে তাকে নেওয়া হয় হাসপাতালে।

স্থা’নীয় পুলি’শের সহযোগিতায় অ্যাম্বুলেন্সের ব্যবস্থা করা হয়। এরপর উত্তর বারাকপুরের একটি হাসপাতালে ভর্তি ক’রানো হয় বৃ’দ্ধকে।

আর এই পুরো সময়টা জুড়ে রিক’শাচালক বৃ’দ্ধকে নিজের কোলে করে রেখেছিলেন সুমন। তার এমন মহৎ উদ্যোগ ও পরা’র্থপ’রতায় সাধু’বাদ জানাচ্ছেন অনেকেই।

সুমন বলেন, ‘এভাবে মৃ’ত্যুপ’থযাত্রী অসুস্থ ব্যা’ক্তিকে রাস্তায় ফেলে চলে যাওয়াটা অন্যায়। স্ত্রী অসুস্থ হলেও বৃদ্ধকে আগে হাসপাতাল পাঠানোর দরকার ছিল।

করোনার ভয়ে কে সাহায্য করলো আর কে সাহায্য করলো না, তা ভেবে লাভ কি? আমি যতটা পারলাম চেষ্টা করেছি। আশা করছি উনি সুস্থ হয়ে উঠবেন’। সূএঃ জাগোনিউজ