ডিপজলের হুঁশিয়ারি, মিশার হুঙ্কার, অঞ্জনার কান্না

এদিকে চলচ্চিত্রের ১৮ সংগঠনকে সাত দিনের আলটিমেটাম দেন সমিতির সভাপতি মিশা সওদাগর। তিনি বলেন, সাতদিনের মধ্যে সমাঝোতা না হলে শিল্পীরা অনির্দিষ্ট দিনের জন্য কর্মবিরতিতে যাবে। অন্যদিকে ১৮ সংগঠনের এমন অন্যায়ের কারণে কান্নায় ভেঙে পড়েন চলচ্চিত্র অভিনেত্রী অঞ্জনা। তিনি বলেন, চলচ্চিত্র প্রযোজক-পরিচালক আমাদের ছায়া, আমাদের বাবা-মা। তারা আমাদের সঙ্গে এই ব্যবহার করলে আমরা কার কাছে যাব। তারা এরকম করলে কান্না ছাড়া কি উপায় আছে।

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সভাপতি মিশা সওদাগর এবং সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খানকে বয়কটের প্রতিবাদে রোববার (১৯ জুলাই) সন্ধ্যায় চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি বিএফডিসির জহির রায়হান কালার ল্যাব অডিটোরিয়ামে সংবাদ সম্মেলন করে। এসময় জনপ্রিয় অভিনেতা মনোয়ার হোসেন ডিপজল হুঁশিয়ারি দেন, তিনি বেঁচে থাকা অবস্থায় কেউ শিল্পী সমিতি ভাঙা তো দূরের কথা, একটা টোকাও দিতে পারবে না।
আরও পড়ুন: করোনায় শুটিং করতে গিয়ে অসুস্থ জাহিদ হাসান

এর আগে গেল ১৫ জুলাই চলচ্চিত্র বিএফডিসিতে সংবাদ সম্মেলন করে চলচ্চিত্রের ‘স্বার্থবিরোধী কর্মকাণ্ড’র অভিযোগে অভিনেতা মিশা সওদাগর ও জায়েদ খানকে অনির্দিষ্টকালের জন্য বয়কটের ঘোষণা দেয় চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট ১৮টি সংগঠন। লিখিত ঘোষণা পাঠ করে শোনান চলচ্চিত্র পরিচালক মুশফিকুর রহমান গুলজার। তিনি তার লিখিত বক্তব্যে বলেন, এই দুই অভিনেতাকে নিয়ে যদি কোনো পরিচালক বা প্রযোজক কাজ করেন, তাহলে তাদের সদস্য পদ বাতিল করা হবে। এছাড়াও তাদের বিরুদ্ধে কঠোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

অন্যদিকে রোববার (১৯ জুলাই) সকাল সাড়ে ১১টায় বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান ও সভাপতি মিশা সওদাগরের পদত্যাগ চেয়ে মানববন্ধন করেন বাদ পড়া শিল্পীরা। তাদের দাবি, ক্ষমতা ব্যবহার করে ১৮৪ জনের সদস্যপদ বাতিল করেছেন জায়েদ খান। আর এই কাজে সহযোগিতা করেছেন মিশা সওদাগর।