ক্রীড়া ব্যক্তিত্বদের মাঝে সোয়া ২ কোটি টাকা বিতরণ



প্রাণঘাতি করোনাভাইরাসের কারণে ক্ষতিগ্রস্থ সারাদেশের অসহায় ক্রীড়াবিদ, সংগঠক, রেফারি, কোচ, জাজ, আম্পায়ার, সাংবাদিক এবং খেলাধুলার সঙ্গে সম্পৃক্ত অন্যান্য ক্রীড়া ব্যক্তিত্বদের মাঝে প্রায় সোয়া ২ কোটি টাকা বিতরণ করেছেন জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের (এনএসসি) চেয়ারম্যান এবং যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল।

করোনাকালে অসহায় ক্রীড়াবিদদের সহযোগিতা করতে এর আগে বিভিন্ন ক্রীড়া ফেডারেশনগুলোর দেয়া তালিকা অনুযায়ী এক হাজার ক্রীড়াবিদকে ১০ হাজার করে মোট ১ কোটি টাকা দিয়েছিল এনএসসি। এবারের পরিসরটা বড়। এবার দেশের ৬৪ জেলা ও ৮ বিভাগ থেকে বাছাইকৃত ক্রীড়াবিদ, সংগঠক, রেফারি, কোচ, জাজ ও আম্পায়ারসহ অন্যান্য ক্রীড়া ব্যক্তিত্বদের মাঝে অর্থ সহায়তা করা হয়েছে। বাদ জাননি ক্রীড়া সাংবাদিকরাও। এই সহায়তা কার্যক্রমে অর্থ পেয়েছেন কর্মহীন ও অসচ্ছল ক্রীড়া সাংবাদিকরাও। রোববার দুপুরে এনএসসির সভাকক্ষে রাজধানী ও এর আশে-পাশের কয়েকটি জেলা ক্রীড়া সংস্থার কর্মকর্তাদের হাতে সহায়তার অর্থের চেক তুলে দেন ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী। বাকি জেলা ও বিভাগের চেকগুলো ডাকযোগে পাঠিয়ে দেয়া হবে। প্রতিটি জেলা থেকে ৪৫ এবং বিভাগ থেকে ১০ জন করে অসহায় ক্রীড়া ব্যক্তিত্বকে আগেই বাছাই করেছিল এনএসসি। এই হিসাবে সর্বমোট ২ হাজার ৯৬০ জন ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব পেয়েছেন এবারের অর্থ সহায়তা। প্রত্যেককে ৭ হাজার টাকা করে মোট ২ কোটি ৭ লাখ ২০ হাজার টাকা দেয়া হয়েছে। এছাড়া ক্রীড়া সাংবাদিকদের তিনটি সংগঠন বাংলাদেশ স্পোর্টস প্রেস অ্যাসোসিয়েশনকে (বিএসপিএ) ৪ লাখ, বাংলাদেশ স্পোর্টস জার্নালিস্টস অ্যাসোসিয়েশনকে (বিএসজেএ) ৩ লাখ ও বাংলাদেশ স্পোর্টস জার্নালিস্টস কমিউনিটিকে (বিএসজেসি) ২ লাখ ৫০ হাজার টাকার চেক দেয়া হয়েছে। সংগঠনগুলো নিজেদের উদ্যোগে তাদের সংস্থার কর্মহীন ও অসচ্ছ্বল সাংবাদিকদের মাঝে এই অর্থ বন্টন করবে।

আগে ক্রীড়া ফেডারেশনগুলোর মাধ্যমে ১ হাজার ক্রীড়াবিদকে এক কোটি টাকা বিতরণের পর দেশব্যাপী বড় পরিসরে সহায়তার জন্য যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী আরো ৩ কোটি টাকা বরাদ্দ এনেছিলেন অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে। সেখান থেকে দুই কোটি ১৬ লাখ টাকা বিতরণের পর বাকি অর্থ দেয়া হবে কয়েকটি ফেডারেশনের মাধ্যমে তাদের অসহায় খেলোয়াড়, সংগঠক ও কোচদের জন্য।

চেক বিতরণকালে প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল বলেন, ‘করোনা দুর্যোগে শুরু থেকেই আমরা ক্রীড়াবিদ ও সংগঠকদের আর্থিক সহায়তা দেয়ার চেষ্টা করছি। এর আগে বিভিন্ন ফেডারেশনের মাধ্যমে এক হাজার ক্রীড়াবিদকে ১ কোটি টাকা দিয়েছি। এছাড়া আমরা বিভিন্ন ক্রীড়া ফেডারেশন, ক্রীড়াবিদ ও সাংবাদিক সংগঠনের মধ্যে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রীবিতরণ করেছি।’

এসময় উপস্থিত ছিলেন যুব ও ক্রীড়া সচিব মো. আখতার হোসেন, এনএসসি সচিব মো. মাসুদ করিমসহ যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ।