Breaking News

কক্সবাজারে প্রস্তুত দক্ষিণ এশিয়ার ইতিহাসের দীর্ঘতম কবর



এশিয়ার ইতিহাসের দীর্ঘতম ক’ব’র- কক্সবাজারের রামুর গর্জনীয়া বড়বিল গ্রামে প্রস্তুত করা হয়েছে দক্ষিণ এশিয়া এবং বাংলাদেশের ইতিহাসের দীর্ঘতম ক’ব’র। বাংলাদেশের সবচেয়ে লম্বা ও বিশ্বের দ্বিতীয় দীর্ঘকায় ব্যক্তি জিন্নাত আলীর ক’ব’র এটি। আজ বিকেল ৩ টায় জা’না’জা শেষে সেখানেই তাকে দা’ফ’ন করা হবে।

দেশের ইতিহাসের সবচেয়ে লম্বা ব্যক্তিটি নিয়ে মানুষের আগ্রহের শেষ নেই। এমনকি তার ক’ব’র দেখতেও উৎসুকদের ভিড় জমে। অনেকে সেই ছবি শে’য়া’র করেছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

এর আগে, মঙ্গলবার চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চ’মেক) হাসপাতা’লের নিউরোসার্জারি বিভাগে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মা’রা যান জিন্নাত আলী। সোমবার শারী রিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) লা’ইফ সা’পো’র্টে রাখা হয়। জিন্নাতের বড় ভাই ইলিয়াছ আলী তার মৃ’ত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ইলিয়াস আলী বলেন, আমাদের সবার প্রিয় জিন্নাত আলী আর নেই। সবাই তার জন্য দোয়া করবেন। সে খুব ক’ষ্ট নিয়ে আমাদের সবাইকে ছেড়ে চলে গেছে। আমি খুব অস’হায় অবস্থায় পড়ে গেছি। ভাইকে বাঁ’চাতে পারলাম না।

পরে চ’মেক হাসপাতা’লের নিউরোসার্জারি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. নোমান খালেদ চৌধুরী সোমবার রাতে ডেইলি বাংলাদেশকে জানান, সকালে জিন্নাত আলীকে যখন নিউরোসার্জারিতে আনা হয়, তখন তিনি অ’জ্ঞান ছিলেন। ওনার পরিস্থিতি এতই জ’টিল ছিল যে, তার আর জ্ঞান ফেরার সম্ভাবনা ছিল না। তিনি ভেন্টি’লেশন সা’পোর্টে ছিলেন।

জানা যায়, জিন্নাত আলী দীর্ঘদিন ডায়াবেটিস, শ্বা’সক’ষ্টসহ মস্তিষ্কে টিউমা’র জনিত সমস্যায় ভু’গছিলেন। এর আগে পাঁচদিন কক্সবাজার মেডিকেল হাসপাতা’লে চিকিৎসাধীন থাকার পর অবস্থার অবনতি হওয়ায় রোববার তাকে চ’মেক হাসপাতা’লে ভর্তি করা হয়।

কক্সবাজারের রামু উপজে’লার গর্জনিয়ার ইউনিয়নের বড়বিল গ্রামের কৃষক আমীর হামজার ছে’লে জিন্নাত আলী। জন্ম ১৯৯৬ সালে। আমীর হামজার তিন ছে’লে ও এক মে’য়ের মধ্যে জিন্নাত তৃতীয়। ২০১৮ সালের ২৪ অক্টোবর জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে জিন্নাত আলীকে নিয়ে যাওয়া হয়। সেসময় গণমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, ১২ বছর বয়স থেকেই উচ্চতা অস্বাভাবিকভাবে বাড়তে থাকে তার। সে সময় জিন্নাত আলীর উচ্চতা ছিল ৮ ফুট ২ ইঞ্চি।

অস্বাভাবিক লম্বা হওয়ায় শারী রিক বিভিন্ন সমস্যার কথা তুলে ধরে জিন্নাত প্রধানমন্ত্রীর কাছে সাহায্য চেয়েছিলেন। এছাড়া কেউ কাজ না দেয়ায় অভাবে আয়-উপার্জন না থাকার কথাও জানিয়েছিলেন তিনি।

পরে প্রধানমন্ত্রী তার চিকিৎসার দায়িত্ব নেন। সেসময় তাকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) ভর্তি করা হয় । সুস্থ হয়ে জিন্নাত বাড়ি ফেরত যান। এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর তহবিল থেকে আর্থিক সহযোগিতায় জিন্নাতকে তার এলাকায় একটি দোকানও করে দেয়া হয়।

রামু উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক নীতিশ বড়ুয়া জানান, জিন্নাত আলীর মাথায় টি’উমারের বিষয়টি জানাজানি হলে ২০১৮ সালের ২৪ অক্টোবর স্থানীয় সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকায় নিয়ে যান। সেখানে তাকে সংসদ ভবনে নিয়ে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করিয়ে দেন।

এসময় তাৎক্ষণিকভাবে জিন্নাতের চিকিৎসার জন্য পাঁচ লাখ টাকা অনুদান দেন প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রীর অনুদানের টাকায় ২০১৮ সালের ২৪ অক্টোবর জিন্নাত আলীকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) ভর্তি করা হয়। হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের প্রধান অধ্যাপক মো. আবদুল্লাহ জিন্নাত আলীর চিকিৎসা করেন।

তিনি আরও জানান, ওই সময় হাসপাতালে কয়েকদিন চিকিৎসাসেবা গ্রহণের পর চিকিৎসকেরা তার মাথার টিউ’মার অপা’রেশনের উদ্যোগ নিলে বেঁকে বসেন জিন্নাত ও তার পরিববারের সদস্যরা। তাদের ধারণা ছিল অপা’রেশন করলেই জিন্নাত মা’রা যাবে। তাই অপা’রেশন না করেই একপর্যায়ে তাকে বাড়ি নিয়ে আসা হয়।

শুধু তাই নয়, তার জীবিকা নির্বাহ এবং বাসস্থানের ব্যবস্থাও করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। চিকিৎসার জন্য প্রধানমন্ত্রী দিয়েছিলেন পাঁচ লাখ টাকার অনুদান। এর পরপরই তাকে দেওয়া হয় একখণ্ড জমি, জমিতে তৈরি একটি পাকা দোকান ও মালামাল কেনার টাকা।

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে জেলা প্রশাসন জিন্নাত আলীর জন্য গর্জনিয়া বাজারে একখণ্ড (০.০০৩৮ একর) জমি বন্দোবস্ত দেয়।

২০১৯ সালের ১০ এপ্রিল সেই জমির ওপর নির্মিত আধাপাকা দোকানঘরটি আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন। এ সময় দোকানঘরের পাশাপাশি জমির ডিসিআর ও দোকানের সামগ্রী জিন্নাত আলীকে হস্তান্তর করা হয়।

গর্জনিয়া ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি হাফেজ আহমদ জানিয়েছেন, মঙ্গলবার বিকেল ৩টায় গর্জনিয়া ইউনিয়নের বড়বিল গ্রামে জিন্নাতের জানাজা নামাজ অনুষ্ঠিত হবে। জানা’জা নামাজে সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমলসহ বিশিষ্টজনদের উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে।

সূত্রঃ ডেইলি বাংলাদেশ