Breaking News

এইমাত্র পাওয়া আরও ১০ দিন বাড়ল সাধারণ ছুটি



করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমণ পরিস্থিতির মধ্যে চলমান সাধারণ ছুটি আরও ১০ দিন বাড়ল। বিভিন্ন নির্দেশনা পালন সাপেক্ষে আগামী ২৬ এপ্রিল থেকে ৫ মে পর্যন্ত ছুটি ঘোষণা করা হচ্ছে। বিকেলের মধ্যে ছুটির প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে।

বুধবার (২২ এপ্রিল) জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিব শেখ ইউসুফ হারুন জাগো নিউজকে এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ‘ছুটির থাকবে ৫ মে পর্যন্ত। নির্দেশনাগুলো প্রস্তুত হচ্ছে, বেশ কিছু নির্দেশনা থাকছে। সন্ধ্যার মধ্যে প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে।’

করোনার কারণে সরকার প্রথমে ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত ছুটি ঘোষণা করে। পরে তিন দফায় বাড়িয়ে ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত করা হয়।

করোনা থেকে প্রতিবন্ধীদের সুরক্ষার আহবান
কোভিড-১৯ একটি স্বাস্থ্য বিষয়ক জরুরি পরিস্থিতি হলেও এর আর্থ-সামাজিক নেতিবাচক প্রভাবটাও স্পষ্ট। সঠিক পরিসংখ্যান না থাকলেও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসাব অনুযায়ী বাংলাদেশে মোট জনসংখ্যার শতকরা ১৫ ভাগ প্রতিবন্ধী। এই দূর্যোগে অনেকটা ঝুঁকিতে আছেন এই তারা।

অনেক প্রতিবন্ধী ব্যক্তি দৈনন্দিন জীবনযাপনে অন্যের উপর নির্ভরশীল থাকেন। বর্তমান পরিস্থিতি প্রতিবন্ধী নারী ও শিশু এবং স্নায়ুবিক ও বহুমুখী প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জীবনকে নানাভাবে অনিশ্চিত করে তুলেছে।

সামগ্রিক পরিস্থিতিতে বাংলাদেশে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জন্য কর্মরত ২১টি সংগঠন সরকারের কাছে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের সুরক্ষায় জরুরি ভিত্তিতে উদ্যোগ গ্রহণের আহবান জানিয়েছে। এ বিষয়ে একটি যৌথ প্রস্তাবনা সরকারের বিভিন্ন দফতরে পাঠানো হয়েছে।

প্রস্তাবনাগুলোর মধ্যে রয়েছে কোভিড-১৯ মোকাবেলায় সকল পর্যায়ের কমিটি ও কার্যক্রমে প্রতিবন্ধী ব্যক্তি এবং প্রতিবন্ধী ব্যক্তি সংগঠনের প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করা, সকল প্রচারণা কার্যক্রমে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের উপযোগিতার বিষয়টি বিবেচনা করা, স্বাস্থ্যকর্মী ও অন্যান্য পেশাজীবিদের প্রশিক্ষণে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের সুনির্দিষ্ট চাহিদার বিষয়সমূহ অন্তর্ভূক্ত করা, বিশেষ ব্যবস্থায় প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জন্য নিয়মিত স্বাস্থ্যসেবাসমূহ চালু রাখা, গুরুতর প্রতিবন্ধী ব্যক্তি, তাদের পরিচর্যাকারী, প্রতিবন্ধী নারী এবং বিদ্যালয় থেকে প্রতিবন্ধী শিশুদের সম্ভব্য ঝরে পড়া রোধে তাদের পরিবারের জন্য নিয়মিত ভাতার বাইরে বিশেষ সুরক্ষা ভাতার ব্যবস্থা করা।

এছাড়া সরকারী বেসরকারি ত্রাণ ও পুনর্বাসন কার্যক্রমে প্রতিবন্ধী প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অগ্রাধিকার প্রদান করা, প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জন্য সুনির্দিষ্ট ও ন্যায্য অর্থ বরাদ্দ করা, কোভিড আক্রান্ত ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে লিঙ্গ, বয়স এবং প্রতিবন্ধিতা বিভাজিত উপাত্ত সংগ্রহ ও তা প্রকাশ করা।