Breaking News

করোনাভাইরাসে অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়ালেন সালমা



মানুষদের পাশে দাঁড়ালেন সালমা- করোনাভা’ইরা’সে কাঁপছে সারা’বিশ্ব। বাংলাদেশের মানুষও ভা’ইরা’সের কা’র’ণে এখন ঘরব’ন্দি। দিনমজুররা পড়েছেন বি’প’দে। ফুরিয়ে গেছে অনেকের ঘরের খাবার। এমন দু’র্দিনে সেই সব দুস্থ মানুষদের সাহায্যে এগিয়ে এসেছে সরকার। বেসরকারি ও ব্যক্তি উদ্যোগেও সহায়তা কার্যক্রম চলছে। এগিয়ে এসেছেন শোবিজের তারকারাও।

এবার অসচ্ছল মানুষদের পাশে দাঁড়াচ্ছেন জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী মৌসুমী আক্তার সালমা। অ্যাডভোকেট স্বামী সানাউল্লাহ নূর সাগরকে নিয়ে মানবসেবা করতে সাফিয়া ফাউন্ডেশন গড়েছেন গায়িকা। নিয়মিত সুবিধা বঞ্চিত মানুষদের জন্য কাজ করে থাকে ফাউন্ডেশনটি। কণ্ঠশিল্পী সালমা জানান, আজ ৩১ মা’র্চ ঢাকা শহরের বিভিন্ন স্থানে অস’হায় মানুষদের মাঝে খাবার বিতরন করবেন তারা।

সালমা বলেন, ‘সাফিয়া ফাউন্ডেশন মানবতার কল্যানে দুস্থ মানুষের পাশে দাড়াচ্ছে। আপনারাও যার যার অবস্থান থেকে যতটুকু পারেন সাহায্য করুন। করোনায় বি’পাকে পড়া মানুষকে আম’রা আমাদের সার্থ অনুযায়ি সহযোগীতা করার চেষ্টা করছি। সাফিয়া ফাউন্ডেশন সর্বদা হতদরিদ্র মানুষের পাশে থাকে এবং থাকবে।

জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী সালমা’র উদ্যোগে ‘সাফিয়া ফাউন্ডেশন ফর এডুকেশনাল ডেভেলপমেন্ট’র কার্যক্রম শুরু হয়েছে গত বছর অক্টোবর থেকে। প্রথম কার্যক্রম শুরু হয় সালমা’র স্বামী অ্যাডভোকেট সানা উল্লাহ নুরে সাগরের গ্রামের বাড়ি ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট এলাকা থেকে।

হালুয়াঘাটে বড়দাস পাড়া এলাকার প্রাথমিক স্কুলে তিন শতাধিক শি’শুকে শিক্ষা উপকরণ ও খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করে ফাউন্ডেশনের ঘোষণা দেন লালনকন্যা খ্যাত গায়িকা সালমা। এরপর বুদ্ধি প্র’তিব’ন্ধী শিক্ষার্থীদের পাশেও দাঁড়িয়েছে ‘সাফিয়া ফাউন্ডেশন’। মানবতার কল্যাণে কাজ করে এগিয়ে যেতে চান তারা।

করোনা ভা’ই’রাসের কা’র’ণে ঘরব’ন্দি মানুষ। তাই কর্মহীন হয়ে পড়েছেন বহু অসচ্ছল পরিবার। শহরও হয়ে পড়েছে ফাঁকা। শহরের অসচ্ছল মানুষদের কথা চিন্ত করে অনেকেই তাদের পাশে এসে খবার নিয়ে হাজির হচ্ছেন।

এক সপ্তাহ থেকে মাসের খাবারও ক্রয় করে দিচ্ছেন। অথচ এই শহরের ঘুরে বেড়ানো পশুদের খবর নিচ্ছেন না তেমন কেউ। এই পরিস্থিতিতে শহরের কুকুরদের পাশে এসে দাঁড়ালেন অভিনেত্রী জয়া আহসান।

জয়া আহসান তাই নিজ হাতে ভাত আর মুরগি রান্না করে মাস্ক আর গ্লাভস পরে খাবারের ব্যাগ হাতে নিয়ে বাসার সহযোগীকে নিয়ে ছুটলেন নগরীর দিলুরোড, ইস্কাটন গার্ডেন ও মগবাজার এলাকার বিভিন্ন স্থানে।

২৭ মার্চ দুপুর থেকে টানা কুকুরদের খাবার দিয়ে আসছেন জয়া। তবে এ বিষয়ে মন্তব্য করতে নারাজ তিনি। তবে মন্ত্য করেন জয়ার আহসানের ভাই অদিত মাসুদ। তিনি নিজেও জানতেন না ঘটনাটি। ৩১ মার্চ বাসার গৃহপরিচারিকার কাছ থেকে তিনি এই খবরটা ও ছবিগুলো পেয়েছেন। বোনের এমন উদ্যোগে দারুণ খুশি হয়েছেন। তার মন্তব্য , মানুষের পাশে অনেক মানুষ ও প্রতিষ্ঠান আছে। কিন্তু এই অস’হায়-অভুক্ত কুকুরগুলোর পাশে তো তেমন কেউ নেই।

করোনা ভা’ইরা’স থেকে ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম (পিপিই) পৌঁছে দিচ্ছে চি’কি’ৎসকদের কাছে। পাশাপাশি আপৎকালীন সময়ের নিম্ন আয়ের মানুষদের জন্য সামগ্রীর ব্যবস্থাও করা হয়েছেন অভিনেত্রী কুসুম শিকদার।

মঙ্গলবার(৩১মার্চ) ঢাকা মেডিকেল কলেজ হা’সপা’তালে করোনাভা’ইরা’স চি’কিৎ’সার সঙ্গে যুক্ত চি’কিৎ’সক ও নার্সদের মধ্যে পিপিই দিলেন কুসুম শিকদার।

পিপিই গ্রহণ করেন হা’সপাতা’লের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে এম নাসির উদ্দিন, উপস্থিত চি’কিৎ’সক ও নার্সরা। ছোট পর্দার এ অভিনেত্রী ও সাবেক লাক্স তারকা জানান, আগামী সপ্তাহে স্বল্প আয়ের মানুষের জন্য কিছু খাবার বিতরণ করবেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে কুসুম শিকদার বলেন, ‘আমি হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার কা’র’ণে যেতে পারিনি। আমার গাড়িচালক সেখানে গিয়ে হা’সপা’তালের পরিচালক এবং ওই বিভাগের চি’কিৎ’সক ও নার্সদের হাতে পৌঁছে দিয়েছেন পিপিইগুলো।

কুসুম শিকদার জানান, পিপিই একবার ব্যবহার করা যায়। কিন্তু করোনাভা’ইরা’সের সং’ক্র’মণ বেড়েই চলেছে। ফলে বিশ্বব্যাপী চি’কিৎ’সক ও নার্সদের কাছে সং’কট তৈরি হয়েছে এই সরঞ্জামের। তিনি বলেন, ‘যেহেতু একবার ব্যবহার করেই ফেলে দিতে হচ্ছে, সে কা’র’ণে এর চাহিদা তৈরি হচ্ছে বিশ্বব্যাপী। আর বাংলাদেশে আরও বেশি সং’ক’ট। তাই পিপিই বেশি জরুরি আমাদের এখানে।